মেনু নির্বাচন করুন

একনজরে ইউনিয়ন

সৈয়দপুর বাংলাদেশের ভোলা জেলার অন্তর্গত দৌলতখান উপজেলার একটি ইউনিয়ন স্বতন্ত্র ইউনিয়ন হিসেবে ৭নং সৈয়দপুর ইউনিয়নের বয়স প্রায় ১৭ বছর। ২০০৬ সাল থেকেই স্থানীয় সরকার কাঠামো স্থায়ীভাবে বিরাজমান। এই ইউনিয়নের প্রথম চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন মোখলেছুর রহমান তালুকদার এবং বর্তমানে চেয়ারম্যান হিসেবে জি. এস ভুট্রু তালুকদার দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রশাসনিক কাঠামো: সৈয়দপুর ইউনিয়ন দৌলতখান উপজেলার আওতাধীন ৭নং ইউনিয়ন পরিষদ। এ ইউনিয়নের প্রশাসনিক কার্যক্রম দৌলতখান থানার আওতাধীন। এটি জাতীয় সংসদের ১১৬নং নির্বাচনী এলাকা ভোলা-২ এর অংশ।

একনজরে ইউনিয়নের তথ্যসমুহ:

ক্রম    প্রতিষ্ঠানের বিবরণ    সংখ্যা                                        ক্রম    প্রতিষ্ঠানের বিবরণ    সংখ্যা

০১    গ্রাম     ৫২টি                                                                ১৪    মোট খালের সংখ্যা    ৪টি

০২    মৌজা    ৫টি                                                                ১৫    স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা ব্যবহারের তালিকা    ৫২%

০৩    খানা/পরিবার    ৫৪৭৭ টি (প্রায়)                                    ১৬    মসজিদ    ৫৫ টি (প্রায়)

০৪    মোট নলকূপ    ৩৪২ টি (প্রায়)                                       ১৭    মন্দির    ২টি

০৫    মোট জনসংখ্যা    ৪৩০০০ জন                                    ১৮    এনজিও    ৫টি

০৬    জনসংখ্যা- নারী    ১৭৭৫০ জন (প্রায়)                          ১৯    জেলে    ৪০০০ (প্রায়)

০৭    জনসংখ্যা- পুরুষ    ৪২২৫০ জন (প্রায়)                        ২০    মৎস্য চাষী    ২৬০০ জন (প্রায়)

০৮    সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়    ১৭টি                               ২১    ইউপি ভবন স্থাপন কাল    ১০/০১/২০০৬

০৯    মাধ্যমিক বিদ্যালয়    ৩টি                                             ২২    মুক্তিযোদ্ধা    ৪৭ জন

১০    দাখিল মাদ্রাসা    ৩টি                                                    ২৩    বয়স্ক ভাতা পাচ্ছেন    ১১৯ জন

১১    শিক্ষার হার    ৪৪% (প্রায়)                                              ২৪    বিধবা ভাতা পাচ্ছেন    ১০৫ জন

১২    হাট ও বাজার    ৫টি                                                      ২৫    প্রতিবন্ধি ভাতা পাচ্ছেন    ৯৩ জন

১৩    কমিউনিটি ক্লিনিং    ৩টি                                              ২৬    ভিজিডি সেবা পাচ্ছেন    ৪৩৮ জন